Bd Jobs Today

রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩

রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩: railway job circular 2023: রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩ প্রকাশিত হয়েছে। রাজস্ব খাতভুক্ত টিকেট কালেক্টর (Ticket – Collector) ও ওয়েম্যান (Wayman) পদের জন্য মোট ১,৪১৮ জন জনবল নিয়োগ দেবে Bangladesh railway। এসএসসি কিংবা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩ নিয়োগে আবেদনের সুযোগ পাবেন। অনলাইনের মাধ্যমে (http://br.teletalk.com.bd) ২ এবং ২০ মার্চ ২০২৩ সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টার মধ্যে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে।

রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩

বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ: রেলওয়ে এ দেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৫৮ বছর আগে, প্রায় ১৮৬২ সালে। এর প্রতিষ্ঠার শুরুতে বাংলাদেশ রেলওয়ে ব্রিটিশ মালিকাধীন পরিবহণ সংস্থা হিসেবে পরিগণিত ছিলো। সম্প্রতি সময়ে এ সংস্থাটি বাংলাদেশ সরকারের একটি মালিকাধীন সংস্থা। যা সমগ্র বাংলাদেশের রেলপথ পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের কাজ সুষ্ঠ ভাবে সম্পন্ন করে থাকে। বিজ্ঞপ্তি ও আবেদন লিংক এখানেই BDinBD.Com

চলমান নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২ (দুই)টি

প্রতিষ্ঠানের নাম কী? বাংলাদেশ রেলওয়ে
প্রার্থীর ধরন কী? নারী ও পুরুষ উভয় প্রার্থী
কী ধরনের চাকরি? সরকারি চাকরি
কোন জেলা? দুটি জেলা ব্যতিত সকল জেলা
পদ সংখ্যা কতটি? ০২ টি
নিয়োগ সংখ্যা কত জন? ১৩৩+১,৩৮৫ জন
শিক্ষাগত যোগ্যতা কী? এসএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।
প্রার্থীর বয়সীমা কত? ১৮-৩০ বছর
আবেদন শুরু কবে থেকে? ২৫ জানুয়ারি, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
আবেদন শেষ কত তারিখে? ০২, ২০ মার্চ ২০২৩
আবেদনের মাধ্যম কী? অনলাইন
ওয়েবসাইট www.railway.gov.bd

রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩

রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩, বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩ এর নিম্নবর্ণিত রাজস্বখাতভুক্ত ওয়েম্যান এর শুন্য পদে স্থায়ী ভিত্তিতে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। উক্ত শূন্যপদ পূরনের নিমিত্তে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখিত শর্ত সাপেক্ষে বাংলাদেশী নাগরিকদের নিকট হতে নির্ধারিত ছকে টেলিটক অনলাইনে আবেদন আহবান করা যাচ্ছে।

এক দৃষ্টিতে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য

টিকেট কালেক্টর পদের যোগ্যতা ও আবেদনের নিয়মাবলী

  1. সংস্থার নাম: বাংলাদেশ রেলওয়ে
  2. পদের নাম: টিকেট কালেক্টর
  3. শূন্যপদ সংখ্যা: ১৩৩ টি
  4. শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচএসসি/সম মান পাশ।
  5. বেতন: ৯,৭০০-২৩,৪৯০/-
  6. আবেদনের মাধ্যম: অনলাইন
  7. আবেদন ফি: ২২৩/-
  8. “Teletalk” হেল্পলাইন নম্বর: 121
  9. ই-মেইল এড্রেস: [email protected]
  10. রেলওয়ের ওয়েবসাইট: www.railway.gov.bd
  11. আবেদন শুরু: ১৩/০২/২০২৩
  12. আবেদন শেষ হবে: ২০/০৩/২০২৩ইং

রেলওয়ে টিকেট কালেক্টর পদে আবেদরেন যোগ্যতা

*শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ রেলওয়েতে টিকেট কালেক্টর পদে চাকরি করতে ইচ্ছুক প্রার্থীদেরকে অবশ্যই এইচএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।

*শারীরিক যোগ্যতাঃ উচ্চতা নুন্যতম ৫ ফুট ৫ ইঞ্চি হতে হবে।

*প্রার্থীর বয়সঃ কালেক্টর পদের আবেদনের জন্য প্রার্থীর বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে।

*আবেদনকারী জেলাঃ সকল জেলার প্রার্থীরা বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকেট কালেক্টর পদে আবেদন করতে পারবেন।

কালেক্টর পদের বেতন কত

রেলওয়ে টিকেট কালেক্টর পদের কর্মরত প্রার্থীদের বেতন ২০১৫সালের বেতন স্কেল অনুযায়ী ধরা হবে। বেতন গ্রেড ১৫ অনুযায়ী টিকিট কালেক্টর পদের বেতন ৯,৭০০-২৩,৪৯০/- প্রদান করা হয়।

আবেদনের নিয়ম টিকেট কালেক্টর

রেলওয়ে টিকেট কালেক্টর পদের আবেন প্রক্রিয়া অনলাইনের মাধ্যমে সম্পন্ন করতে হবে। অনলাইনে টেলিটক ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে (http://br.teletalk.com.bd) আবেদনের সকল ধাপ সম্পন্ন করে ২০ মার্চ ২০২৩ তারিখের মধ্যে আবেদন করতে হবে। এর জন্য প্রথমে অনলাইনে ওয়েবসাইট থেকে ফরম পূরণ করতে হবে, তারপর নির্ধারিত আবেদন ফি প্রদান করে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে। অনলাইনে ফরম পূরণের পর ৭২ ঘন্টার মধ্যে আবেদন ফি বাবদ ২২৩ টাকা টেলিটক প্রিপেইড সিমের মাধ্যমে করতে হবে।

রেলওয়ে টিকেট কালেক্টর এর কাজ

বাংলাদেশ রেলওয়েতে বর্তমনে টিকেট কালেক্টর এর কাজ হলো ট্রেনের ভিতরে ও রেল স্টেশনের গেইটের সকল যাত্রীদের টিকেট চেক করা। টিকেট কালেক্টর এর প্রধান কাজই হচ্ছে চলমান ট্রেনের যাত্রীদের টিকেট চেক করা। এছাড়া অনেক সময় গেইটে টিকেট সংগ্রহ করে আবার অনেক সময় করেও না।

দেখুন বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩ সার্কুলার

রেলওয়ে নিয়োগ
রেলওয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

আবেদন লিংক সার্কুলার পিডিএফ

ওয়েম্যান পদে আবেদনের যোগ্যতা ও আবেদনের নিয়মাবলী

  1. সংস্থার নাম: বাংলাদেশ রেলওয়ে
  2. পদের নাম: ওয়েম্যান।
  3. শূন্যপদ সংখ্যা: ১,৩৮৫ টি
  4. শিক্ষাগত যোগ্যতা: এসএসসি পাশ।
  5. বেতন: ৮,৫০০-২০,৫৭০/-
  6. আবেদনের মাধ্যম: অনলাইন
  7. ফি প্রদান করতে হবে: ১১২/-
  8. “Teletalk” হেল্পলাইন নম্বর: 121
  9. ই-মেইল এড্রেস: [email protected]
  10. রেলওয়ের ওয়েবসাইট: www.railway.gov.bd
  11. টেলিটকের মাধ্যমে আবেদন শুরু: ২৫/০১/২০২৩
  12. আবেদন শেষ হবে: ০২/০৩/২০২৩ইং

প্রার্থীর বয়স

আবেদনের জন্য প্রার্থীর বয়স ২৫ জানুয়ারি ২০২৩ ইং তারিখে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে। তবে বীর মুক্তিযোদ্ধা বা শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বা শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়স ৩২ বছর। বীর মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধার নাতি–নাতনিদের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়স ৩০ বছর।

আবেদনের যোগ্যতা

আবেদনের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা হিসেবে এসএসসি অথবা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে কোন ক্ষেত্রেই। কোনো পরীক্ষায় তৃতীয় বিভাগ গ্রহণযোগ্য নয়।

যেসব জেলার প্রার্থীগন আবেদন করতে পারবেন

পাবনা, লালমনিরহাট, কুষ্টিয়া ও গাইবান্ধা জেলা ছাড়া অন্য সব জেলার প্রার্থীগন আবেদন করতে পারবেন। তবে এতিম ও শারীরিক প্রতিবন্ধী ও রেলওয়ে পোষ্য কোটায় সব জেলার প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

আবেদন ফি

ওয়েম্যান পদে আবেদনের জন্য প্রার্থীদেরকে আবেদন ফি ১১২টাকা আবেদনের ৭২ ঘন্টার মধ্যে টেলিটক প্রিপেইড সিমের মাধ্যমে প্রদান করতে হবে।

আবেদনের সময় শুরু ও শেষ

আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩, সকাল ১০টা এবং আবেদন শেষ হবে ২ মার্চ ২০২৩ বিকাল ৫ ঘটিকা।

ওয়েম্যান পদের বেতন

ওয়েম্যান পদে জন্য মাসিক বেতন হিসেবে ৮,৫০০-২০,৬৭০টাকা পর্যন্ত প্রদান করা হয় (বেতন গ্রেড-১৯তম)।

রেলওয়েতে ওয়েম্যান পদে আবেদনের নিয়ম

বাংলাদেশ রেলওয়েতে ওয়েম্যান পদে চাকরির আবেদনের জন্য প্রার্থীদেরকে ৬ টি ধাপে আবেদনের নিয়ম সম্পন্ন করতে হবে। ধাপগুলো নিম্নে পর্যায়ত্রুমে দেওয়া হলো।

প্রথমে br.teletalk.com.bd এই লিংকে ভিজিট করুন।

এরপর “Wayman”-এই অপশনে ক্লিক করুন।

অতপর “Application Form”-এ আসলে সেখানে ক্লিক করুন।

“Wayman” পদটি নির্বাচন করে “Next”-অপশনে ক্লিক করুন।

পরবর্তি ধাপে “Yes” রেডিও বাটন চেক দিন যদি Alljobs এর প্রিমিয়াম মেম্বার হয়ে থাকেন, যদি না হয়ে থাকেন তাহলে “No” রেডিও বাটন চেক দিন। তারপর “Next” বাটনে প্রেস করুন।

এবার পরবর্তী নির্দেশনা অনুসরণ করুন। যথাযথ তথ্য দিয়ে আবেদন ফরম পূরণ করুন। সবশেষে তথ্য যাচাই করে সাবমিট করুন।

আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয়: অনলাইনে আবেদন করার সময় প্রার্থীর এক(০১) কপি রঙ্গিন ছবি (ছবির মাপ হতে হবে ৩০০x৩০০ pixel) এবং একটি স্বাক্ষরের ছবি (স্বাক্ষরের মাপ হতে হবে ৩০০x৮০ পিক্সেল) দরকার হবে। আবেদনের পূর্বে ছবি দু’টি সঙ্গে রাখবেন। ছবির সাইজ হতে হবে অনুর্ধ্ব ১০০ KB (Kilobytes) এবং স্বাক্ষরের সাইজ হতে হবে অনুর্ধ্ব 60 KB পর্যন্ত।

এসএমএস এর মাধ্যমে ফি জমাদান পদ্ধতি

এসএমএস এর মাধ্যমে ফি জমাদান পদ্ধতি

রেলওয়ে প্রবেশপত্র ডাউনলোড

রেলওয়েতে নিয়োগ পরীক্ষার প্রবেশপত্র প্রকাশিত হলে তা প্রার্থীদেরকে SMS এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে। পরীক্ষাদিতে ইচ্ছুক প্রার্থীগন প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন এই http://br.teletalk.com.bd লিংকে প্রবেশ করে।

এডমিট কার্ড ডাউনলোডের জন্য যখন এভাইলেবল হবে, তখন উক্ত লিঙ্কে প্রবেশ করে User ID এবং Password এন্টার করে ডাউনলোড করতে পারবেন।

ওয়েম্যান পদের সুযোগ-সুবিধা

ওয়েম্যান পদে কর্মরত প্রার্থীগন মাসিক বেতনের পাশাপাশি সরকারি বিধিমালা অনুযায়ী ভাত, বোনাস এবং আরও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পাবেন।

পদোন্নতি

ওয়েম্যান হয়ে জয়েন করার পর যে শুধু ওয়েম্যানই থাকবে তা কিন্তু নয়। এই পদে কর্মরত থাকাকালীন পদোন্নতির সুয়োগ আছে। ওয়েম্যান পদে প্রথমে প্রোমোশন হলে ”কী-ম্যান” তার পর আবার প্রোমোশন হলে ”মেট” হতে পারবেন।

বাংলাদেশ রেলওয়ে ওয়েম্যান এর কাজ কি?

রেলওয়েতে ওয়েম্যান এর কাজ হচ্ছে রেল লাইনের সকল ত্রুটি বিচ্যুতি ঠিক করে রেলনাইনকে সচল রাখা। Wayman পদের প্রার্থীদের মূলত রেল লাইন তৈরি, রেল লাইনে যাবতীয় ত্রুটির মেরামত এবং রক্ষণাবেক্ষণ সংক্রান্ত কাজ করতে হয়। রেললাইনে ওয়েম্যানরা রেললাইন পরিদর্শন, রেল নাইনের প্রতিটি নাট, পাত, ফিশপ্লেট, ক্লিপ/হুক যথাস্থানে ঠিক ভাবে আছে কিনা এগুলো সর্বদা দেখাশুনা করার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট বিষয়ের চেকিং কাজ ওয়েম্যান কর্মীরা করে থাকে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে ওয়েম্যান পদের যোগ্যতা কি?

রেলওয়েতে যে সকল প্রার্থী ওয়েম্যান পদে আবেদন করতে চান তাদেরকে কোন স্বীকৃত শিক্ষা বোর্ড হতে ন্যূনতম মাধ্যমিক/এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। বয়স ২৫-০১-২০২৩ তারিখে ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে হতে হবে, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ক্ষেত্রে ৩২ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য।

বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ ২০২২
রেলওয়ে নিয়োগ ২০২২
বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ

আবেদন লিংক সার্কুলার পিডিএফ

দেখুন নতুন নিয়োগ সার্কুলার

বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ

রেলওয়ের আবেদন ফরম পূরণ এবং পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে প্রার্থীর বয়স ২৫-০১-২০২৩ তারিথে অবশ্যই ১৮-৩০ বছরের মধ্যে থাকতে হবে। তবে বীর মুক্তিযােদ্ধা/শহীদ বীর মুক্তিযােদ্ধার সন্তান এবং শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে সরকারি বিধি অনুযায়ী সর্বোচ্চ ৩২ বছর পর্যন্ত নেওয়া হবে। উল্লেখ্য যে, বীর মুক্তিযােদ্ধা/শহীদ বীর মুক্তিযােদ্ধাদের পুত্র/কন্যার পুত্র/কন্যাদের ক্ষেত্রে ৩০ বছর। কিন্তু প্রার্থীর বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে কোন প্রকাশ এফিডেভিট গ্রহণ করা হবে না।

আবেদনের সময়সীমা

  • আবেদনপত্র পূরণ ও পরীক্ষার ফি জমাদান শুরুর তারিখ ও সময়: ২৫/০১/২০২৩ইং
  • আবেদনপত্র জমাদানের শেষ তারিখ ও সময়: ০২/০৩/২০২৩ইং

প্রথম ফরম পূরণে ছবি ও স্বাক্ষর: Online আবেদনপত্রে প্রার্থী তার রঙ্গিন ছবি ”দৈর্ঘ্য ৩০০ X প্রস্থ ৩০০” Pixel ও স্বাক্ষর (দৈর্ঘ্য ৩০০ X প্রস্থ ৮০) Pixel স্ক্যান করে নির্ধারিত স্থানে Upload করবেন। ছবির সাইজ সর্বোচ্চ 100KB ও স্বাক্ষরের সাইজ সর্বোচ্চ 60KB হতে হবে।

ফরম পূরণের নিশ্চয়তা: Online আবেদনপত্রে পূরণকৃত তথ্যই যেহেতু পরবর্তী সকল কার্যক্রমে ব্যবহৃত হবে, সেহেতু (Online এ আবেদনপত্র Submit করার পূর্বেই পূরণকৃত সকল তথ্যের সঠিকতা সম্পর্কে প্রার্থী নিজে শতভাগ নিশ্চিত হবেন।

পূরনকৃত ফরমের প্রিন্টকপির কাজ: প্রার্থী Online-এ পূরণকৃত আবেদনপত্রের একটি প্রিন্টকপি পরীক্ষা সংক্রান্ত যে কোন প্রয়ােজনে সহায়ক হিসেবে সংরক্ষণ করবেন এবং মৌখিক পরীক্ষার সময় এক কপি জমা দিবেন।

SMS প্রেরণের নিয়মাবলি: অনলাইন এ আবেদনপত্র যথাযথভাবে পূরণ করে নির্দেশনামতে ছবি (Pictures) এবং স্বাক্ষর (Signature) upload করতে হবে। আবেদনপত্র সাবমিট (Submit) করা সম্পন্ন হলে সঠিকভাবে দাখিলকৃত আবেদনপত্রের ক্ষেত্রে কম্পিউটারে ছবিসহ Application Preview দেখা যাবে। সঠিকভাবে আবেদনপত্র Submit করা সম্পন্ন আবেদনকারী একটি User ID, ছবি এবং স্বাক্ষরযুক্ত একটি Applicant কপি পাবেন। উক্ত Applicant কপি প্রার্থী download পূর্বক প্রিন্ট করে সংরক্ষণ করবেন।

পরীক্ষার ফি প্রদান: আবেদনপত্রের (Applicant) কপিতে একটি User ID নম্বর দেয়া থাকবে এবং ওই User ID নম্বর ব্যবহার করে প্রার্থী নিম্মােক্ত পদ্ধতিতে যে কোন teletalk pre-paid mobile নম্বরের মাধ্যমে ০২ (দুই) টি SMS করবে। এসএমএস এর মাধ্যমে প্রার্থীকে পরীক্ষার ফি ১০০/- ও teletalk এর সার্ভিস চার্জ বাবদ ১২/- টাকাসহ মােট ১১২/- (একশত বার) ৭২ ঘন্টার মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দিবেন। লক্ষনীয় বিষয় এই যে Online-এ আবেদনপত্রের সকল অংশ পূরণ করে Submit করা হলেও পরীক্ষার ফি জমা না দেয়া পর্যন্ত আবেদনপত্র কোন অবস্থাতেই গ্রহন করা হবে না।

রেলওয়ে নিয়োগ ২০২৩ সম্পর্কে আপনার যা জানা প্রয়োজন

বাংলাদেশ রেলওয়ের নতুন নিয়োগ বিজ্ঞিপ্তিতে চাকরির জন্য আবেদন করতে পারবেন বাংলাদেশের প্রায় সকল জেলার জনগন। কেবলমাত্র লালমনিরহাট এবং পাবনা জেলার সাধারণ প্রার্থীগণ আবেদন করতে পারবেন না। কিন্তু এ দুটি জেলার এতিম ও শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রার্থীগণও আবেদন করতে পারবেন।

যারা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে চাকরিরত আছেন তারাও চাইলো অ্যাপলাই করতে পারবেন। তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতিক্রমে করতে হবে। চকরিতে কর্মরত প্রার্থীগণ আবেদন ফরম পূরণ করার সময় Departmental Candidate অপশনে টিক দিবেন। তবে সাধারণ প্রার্থীদের ক্ষেত্রে টিক দেওয়ার প্রয়োজন নেই।

রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রকাশিত খালাসী পদে নিয়োগের জন্য সরকার প্রদত্ত সকল বিধি-বিধান অনুসরণ করে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে।রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের যে কোন প্রয়োজনে শূন্য পদের সংখ্যা বাড়াতে অথবা কমাতে পারবেন। চাইলে Bangladesh railway niyog 2022 এর নিয়োগ কার্যক্রম বাতিল করতে পারবেন। কর্তৃপক্ষ এই অধিকার সংরক্ষণ করে।
প্রকাশিত নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ যে সিদ্ধান্ত নেবেন সে সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

জেনে নিন প্রতিষ্ঠান রিলেটিভ সকল তথ্য

বাংলাদেশ রেলওয়ে কী? বাংলাদেশ রেলওয়ে হচ্ছে বাংলাদেশের একটি রাষ্ট্র-মালিকানাধীন এবং রাষ্ট্র কর্তৃক পরিচালিত রেল পরিবহন সংস্থা। ১৯৯০ খ্রিষ্টাব্দে এই সংস্থা নতুন প্রতিষ্ঠিত রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অধীন নিজের সকল কার্যক্রম পরিচালনা করে। রেলওয়েতে মোট ২৫০৮৩ জন নিয়মিত কর্মচারী রয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট রুট ২৯৫৫.৫৩ কি.মি.।

বাংলাদেশ রেলওয়ের রুপরেখা

রেলওয়ে প্রতিষ্ঠিত হয় কত সালে? ১৮৬২
রেলওয়ের ধরন কী? বাংলাদেশ রেলওয়ে
এর সদরদপ্তর? ঢাকা, বাংলাদেশ
রেলওয়ের বাণিজ্য অঞ্চল কোথায়? বাংলাদেশে
প্রধান ব্যক্তির নাম কি? ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদার, মহাপরিচালক
রেলওয়ের আয় কত টাকা? এক হাজার ১৩ কোটি টাকা
ব্যায় কত টাকা? ছয় হাজার ২৫ কোটি টাকা
কর্মীর সংখ্যা কতজন? ২৭,৫৩৫ টাকা

বাংলাদেশ রেলওয়ে নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন

১। বাংলাদেশ রেলওয়ে কী ধরনের সংস্থা?
উত্তরঃ বাংলাদেশ রেলওয়ে হচ্ছে বাংলাদেশের একটি রাষ্ট্র-মালিকানাধীন সংস্থা।

২। বাংলাদেশ রেলওয়ের সদর দপ্তর কোথায় অবস্থিত?
উত্তরঃ বাংলাদেশ রেলওয়ের সদর দপ্তর ঢাকায় অবস্থিত।

৩। বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক কে?
উত্তরঃ ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদার।

৪। বাংলাদেশ রেলওয়ের কর্মীসংখ্যা কত?
উত্তরঃ সর্বমোট ২৭,৫৩৫ জন।

৫। বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভাগসমূহ কতটি?
উত্তরঃ ২টি, যথা: পূর্বাঞ্চল রেলওয়ে ও পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে।

৬। বাংলাদেশ রেলওয়ে কে পরিচালনা করে?
উত্তরঃ রেলপথ মন্ত্রণালয়।

৭। বাংলাদেশ রেলওয়ে যাত্রী সংখ্যা কত?
উত্তরঃ ৬৫ মিলিয়ন।

৮। বাংলাদেশ রেলওয়ের দৈর্ঘ্য কতটুকু বিস্তৃত?
উত্তরঃ মোট ২,৮৮৫ কিমি।

৯। বাংলাদেশ রেলওয়ের ডাবল ট্র্যাকের দূরত্ব কত?
উত্তরঃ ৩৬৪ কিমি।

১০। মিটার গেজ কত কিমি পর্যন্ত বিস্তৃত?
উত্তরঃ ১,৮৩৮ কিমি পর্যন্ত।

১১। বাংলাদেশ রেলওয়ের ব্রড গেজ কত কিমি পর্যন্ত বিস্তৃত?
উত্তরঃ ৬৮২ কিমি।

১২। বাংলাদেশ রেলওয়েতে সেতুর সংখ্যা কত?
উত্তর: ৩,৬৫০ টি।

১৩। বাংলাদেশ রেলওয়েতে সেতুর ক্যাটাগরি কতটি?
উত্তর: দুইট (প্রধান/ অপ্রধান)।

১৪। বাংলাদেশ রেলওয়ের দীর্ঘতম সেতু কতটি ও কি কি?
উত্তরঃ ২ টি। যথা: বঙ্গবন্ধু ব্রিজ ও হার্ডিঞ্জ ব্রিজ।

১৫। বাংলাদেশ রেলওয়ের স্টেশন সংখ্যা কতটি?
উত্তরঃ ৪৯৮ টি।

১৬। বাংলাদেশ রেলওয়ে কোন ধরনের সংস্থা?
উত্তরঃ এটি বাংলাদেশের একটি রাষ্ট্র-মালিকানাধীন ও রাষ্ট্র-পরিচালিত রেল পরিবহন সংস্থা।

১৭। বাংলাদেশ রেলওয়ের সদর দপ্তর কোথায় অবস্থিত?
উত্তরঃ এর সদর দপ্তর ঢাকায় অবস্থিত।

১৮। বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট কত কি.মি. পর্যন্ত রুট রয়েছে?
উত্তরঃ ২৯৫৫.৫৩ কিমি।

১৯। বাংলাদেশ রেলওয়ে বাংলাদেশের কী পরিচালনা করে?
উত্তরঃ রেল পরিবহন ব্যবস্থার সিংহভাগ পরিচালনা করে।

২০। বাংলাদেশ রেলওয়েকে মূলত কতটি অংশে ভাগ করা হয়?
উত্তরঃ দুইটি অংশে।

২১। বাংলাদেশ রেলওয়ের দুটি অংশ কী কী?
উত্তরঃ একটি অংশ যমুনা নদীর পূর্ব পাশে ও অপরটি পশ্চিম পাশে।

২২। বাংলাদেশ রেলওয়ের তৃতীয় অংশ কোনটি?
উত্তরঃ রূপসা-বাগেরহাট ব্রড-গেজ রেলপথ সেকশন।

২৩। বাংলাদেশে রেলওয়ের কার্যক্রম শুরু হয় কখন?
উত্তরঃ ব্রিটিশ শাসনামলে, ১৮৬২ সালে।

অন্যদের শেয়ার করুন


Source link

Tags: No tags

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *